অনলাইন জব কিভাবে করব হাই ডিমান্ডিং অনলাইন জব এর তালিকা

অনলাইন জব দিন দিন শুধু আমাদের দেশে নয় সারা পৃথিবীতে বিপ্লব সৃষ্টি করেছে। ২০২১ সালে এসে অনলাইনে জব করার প্রয়োজনীয়তা বেশ ভালভাবে উপলব্ধি করেছে বিশ্ব। যখন কদমফুল রোগের বিস্তার শুরু হওয়াই প্রচুর পরিমাণ মানুষ চাকরি হারিয়েছে, ফলে তারা বিকল্প জীবিকা হিসেবে অনলাইন জব সার্কুলার বা অনলাইন জব অফার খুজেছে। এমনকি বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মচারীদের বাসাই বসে অনলাইনে জব করার পদ্ধতি অবলম্বন করতে হয়েছে। বাসাই বসে অনলাইন জব করার বেশ কিছু সুবিধা আছে। যেকারনে মানুষ দিন দিন এটাতে ঝুকছে। আপনি কি স্টুডেন্ট, মেয়েদের জন্য অনলাইন জব খুজছেন? কিংবা আপনি চাকরির পাশাপাশি কিছু উপার্জনের চিন্তা করছেন? যদি জানতে চান অনলাইন জব কিভাবে করব, তাহলে পড়তে থাকুন।

বিশ্বাস করুন, এই আর্টিকেল পড়ে অনলাইন জব সম্পর্কে আপনার সব কনফিউশন দূর হয়ে যাবে। কারণ আজ আলোচনা করব অনলাইন জব সার্কুলার বা অফার কিভাবে খুজবেন, কিভাবে করবেন, কিভাবে শিখতে বা নিজের স্কিল বাড়াতে পারবেন সব নিয়ে। অনলাইন জব বিকাশ পেমেন্ট নিতে পারবেন কিনা। সোঁ, হোয়াট আর ইউ ওয়েটিং ফর?

ঘরে বসে অনলাইন জব করার সুবিধা গুলো কি কি?

ঘরে বসে কাজ বা অনলাইন জব করার দারুণ কিছু সুবিধা আছে। মূলত এই সুবিধা গুলোর কারণে মানুষ এটাকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিচ্ছে। অনলাইন জব এর সুবিধা হল আপনি যেকোনো সময় বিরতি নিতে পারবেন। তাড়াহুড়ো কম, লাঞ্চের সময় লাঞ্চ করবেন যেকোনো সময় আবার কাজে মনোযোগ দিতে পারবেন। যেকোনো প্রফেশনাল কাজের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সঠিক কাজের পরিবেশ। বাসাই বসে কাজ করলে আপনি যেকোনো রুমকে হোম অফিস হিসেবে নিজের মত সুন্দর করে সাজিয়ে নিতে পারবেন। আপনার যেমন পরিবেশ ভাললাগে ঠিক আপনার মনের মত করে। প্রফেশনাল জবে আপনার যেকোনো ফরমাল ড্রেসকোড মেনে চলতে হয়, এটা বাধ্যতামূলক। কিন্তু, অনলাইন জব বা হোম অফিস এর ক্ষেত্রে আপনি এই বাধ্যতার বাইরে থাকবেন। কোন ফরমাল ড্রেসকোড পরা লাগবে না। বরং আপনার যেটা পড়তে ভালো লাগে সেটা পরেই কাজ করতে, মিটিং করতে পারবেন।

অনেক সময় অফিসে কলিগদের সাথে আপনার বোঝাপড়া হয় না ঠিক মত কিংবা কেও কেও সারাক্ষণ অপ্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে কথা বললে আপনার বিরক্ত লাগে। অনলাইন জব করলে আর সেইসব কলিগদের বিতর্ক শুনতে হবে না। সহজেই লাঞ্চের অতিরিক্ত খরচ বাচাতে পারবেন। আরও বাসাই বসে পরিবারের সকলের সাথে এক সাথে দুপুরের খাবার গ্রহণ করবেন। ট্রাফিক জ্যাম চ্যাঁচামেচি আমার একদমি ভালো লাগে না। নিশ্চয় জানেন ঢাকা শহরের ট্রাফিক জ্যাম, রাস্তাঘাটে চ্যাঁচামেচি কত বাজে, মাথা নষ্ট করে দেয়। এজন্য অনলাইন জব বেছে নিয়েছে ক্যারিয়ার এর জন্য। আমরা যারা ভালবাসতে জানি, তারা চাই তাদের ভালোবাসার মানুষের সাথে কিছুটা বেশি সময় কাটাতে, নোতুন নোতুন স্মৃতি তৈরি করতে। কারণ জিবনে মেমোরি ছাড়া কিছু থাকবে বুড়ো হয়ে গেলে? আশা করি বুঝতে পেরেছেন বাসাই বসে কাজ বা বেবসা করার সুবিধা। আর কোন সুবিধা আপনার জানা থাকলে কমেন্ট করে জানান।

অনলাইন জব কিভাবে করব

আপনি যে বিষয়ে দক্ষ বা আপনার যে সার্ভিসটি বিক্রি করে অনলাইনে টাকা আয় করতে চান, সেটাকে আসলে একটা বিজনেস হিসেবে দেখুন। এই কাজটি আপনি কয়েকভাবে করতে পারবেন। কোন মার্কেটপ্লেস এ নিজের  প্রফেশনাল প্রোফাইল খুলে, যে সার্ভিস দিতে চান সেটার সোঁ অফ করতে হবে। মার্কেট প্লেস এ কাজ করার সুবিধা হল আপনাকে আলাদা ভাবে মার্কেটিং না করলেও চলবে কারণ মার্কেট প্লেস গুলো আপনাকে মার্কেটইং করে দিবে। ক্লাইন্ট আপনাকে খুজে নেবে। এবং মার্কেট প্লেস এ কাজ না করলে আপনি নিজে নিজের মার্কেটিং করে ক্লাইন্ট পেতে পারেন। ফেসবুক এ আপনি বিভিন্ন বিজনেস করতে পারেন। ফেসবুক বিজ্ঞাপন কে কাজে লাগিয়ে আপনি যেকোনো প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন। অথবা অনলাইনে আপনার প্রয়োজনীয় কাজ অন্য কাওকে দিয়ে করিয়ে নিতে পারেন একই উপায়ে।যদি অনলাইন চাকরি করতে চান তাহলে, সেরা কিছু জব সম্পর্কে আপনার ধারণা উচিত। চলুন জেনে নেওয়া যাক!

অনলাইন জব সার্কুলার বা অনলাইন জব অফার কোথায় পাবো?

অনলাইনে জব করতে চাইলে আপনার ধারণা থাকা জরুরি কিভাবে জব অফার পাব? এই বিষয়ে। প্রচুর মানুষ সারভাইভ করে জব সার্কুলার পাওয়া নিয়ে। কারণ তারা অনেক ভুল বেক্তির কাছ থেকে ভুল ইনফরমেশন পায়। অর্থাৎ, সঠিক দিক নির্দেশনা বা কারো জন্য কোন প্লাটফর্ম ভালো এইটা বুঝতে পারা কঠিন হয়ে যায়। তাদের জন্য। কিভাবে ক্লাইন্ট মানেজ করতে হয়, কিভাবে প্রজেক্ট মানেজমেনট করতে হয়। এগুলো জানা জরুরি। চলুন দেখে আসি কিভাবে অনলাইন জব সার্কুলার বা অনলাইন জব অফার সহজেই পেয়ে যেতে পারেন।

১)ফেসবুক থেকে অনলাইন জব

ফেসবুক থেকে আপনি বিভিন্ন ধরণের জব পেতে পারেন। আপনি যে বিষয়ে দক্ষ, সেই বিষয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপে যুক্ত হতে পারেন। সেখানে যুক্ত হয়ে, গ্রুপের বিভিন্ন মানুষের ছোট খাট সমস্যা সমাধান করে দিতে পারেন। ফলে গ্রুপে আপনার একটা ভালো রেপুটেঁসন তৈরি হবে এবং অনেকের আস্থাভাজন হয়ে উঠবেন। এতে আপনার যে সুবিধা হবে টা হল যেকোনো বড় প্রজেক্ট কিংবা তাদের মাধ্যমে জব পেতে পারেন।এখান থেকে সরাসরি জব পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

২)লিঙ্কডইন

এটি একধরনের সোশ্যাল মিডিয়া, কিন্তু এটার বিশেষত্ব হচ্ছে এখানে শুধু প্রফেশনাল লোকজন থাকে। বিভিন্ন কোম্পানি এখান থেকে নির্দিষ্ট কাজের জন্য লোকজনকে হায়ার করে থাকে। যেকোনো কাজের জন্য সব ধরণের প্রফেশনাল বেক্তির খোঁজ মেলে এখানে। এই প্লাটফর্মটি তৈরি করা হয়েছে মূলত চাকরি দাতা ও চাকরি খোঁজার মানুষদের জন্য।এখান থেকে সরাসরি কোম্পানি আপনাকে খুজে নেবে। প্রোফাইল তৈরি করে সি সহজ কাজটি করতে পারেন।

৩)ইন্সটাগ্রাম

অবাক হচ্ছেন? এই সিক্রেট কেও শেয়ার করে না। মজার বিষয় হচ্চে ইন্সটাগ্রাম থেকে আপনি প্রচুর কাজ পেতে পারেন। যদি আপনি আসলেই দক্ষ হন, তাহলে, এটা আপণাড় জন্য সহজ হয়ে যাব। ইন্সটাগ্রাম থেকে কিভাবে অনলাইন জব পাওয়া যায়, তাই নিয়ে বিস্তারিত আমি লিখবো আপনার জন্য। পড়তে থাকুন।

৪)ফাইভার

ফাইভার অন্যতম জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস আমাদের বাংলাদেশে। এখানে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেটা বিক্রি করে টাকা আয় করতে পারেন ঘরে বসেই। অনলাইন জব করে টাকা আয় করা, আসলে খুব একটা কঠিন নয়। আপনাকে যেটা করতে হবে তাহল কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে আপনাকে দক্ষ হতে হবে ভালভাবে। এবং একই সাথে মার্কেট প্লেস এর ভাষা বুঝতে শিখতে হবে। ফাইভার নিয়ে বিস্তারিত আর্টিকেল পেয়ে যাবেন দেশিলারনারস ব্লগে। এখনি পড়া শুরু করুন।

ফাইভার থেকে টাকা আয় করব কিভাবে

৫)ফ্রিলান্সার ডট কম

ফ্রিলাঞ্চার ডট কম হল ফাইভার এর মত একটি মার্কেট প্লেস। তবে ফাইভার থেকে এই কিছু বিশিষ্ট পার্থক্য আছে। এখানে বিভিন্ন কোম্পানি বা বেক্তি অনলাইন জব অফার পোস্ট করে। এবং কর্মী ফ্রিলাঞ্চার হিসেবে আপনি এইসব অনলাইন জব বড় প্রজেক্ট এর জন্য এপ্লাই করতে পারেন। তাদের যদি পছন্দ হয় আপনাকে কাজে নেবে। এবং প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এখানে জবের দারুণ সুযোগ রয়েছে।

৬)আপওয়ার্ক

এটিও একটি অনলাইন মার্কেট প্লেস। পৃথিবীতে যত ফ্রিলাঞ্চার আছে, তাদের সবার প্রথম পছদের মার্কেট প্লেস হল আপওয়ার্ক। অন্যান্য মার্কেটপ্লেস এর থেকে এখানে কাজ করার কিছু অতিরিক্ত সুযোগ সুবিধা আছে। যে কারণে এইটা সবচেয়ে জন প্রিয়। শুধু আপনি যে বিষয়ে দক্ষ, তা নয় আপনি সব ধরণের অনলাইন জব এখানে করতে পারবেন। তবে নতুনদের জন্য এটি ভালো হবে না। প্রফেশনাল হয়ে আপওয়ার্ক এ জয়েন করা উচিত। এখানে হাজার হাজার কম্পিটিশন। আপনার থেকে এক্সপার্ট লোক এখানে বেশি। নতুনদের জন্য ফাইভার সবচেয়ে ভালো মার্কেটপ্লেস।

অনলাইন জব মোবাইল দিয়ে সম্ভব?

এই প্রশ্নটা আমাদের প্রায়ই শুনতে হয় যে ভাউ অনলাইনে জব গুলো কি মোবাইল দিয়ে করা যায়? এককথায় এর উত্তর “না” করা যায় না। অনলাইন জব কে আপনি বিজনেস হিসেবে যদি না নিতে পারেন, এটা আপনার জন্য নয়! প্রফেশনাল বিষয় কে প্রফেসনালি হ্যান্ডেল না করতে পারলে ফ্রিলাঞ্চিং আপনার জন্য জটিল হয় যাবে। ইউটিউবে হয়ত অনেক ভাই আপনাকে বলছে, অনলাইন জব মোবাইল দিয়ে হয়। এইটা সম্পূর্ণ ধান্দাবাজি। তাহলে, প্রশ্ন হল অনলাইন জব করতে কি কি প্রয়োজন? চলুন জেনে আসি।

অনলাইন জব করতে যা যা প্রয়োজন

সবচেয়ে গুরুত্ব পূর্ণ হল আপনার স্কিল। আপনি কি আসলেই দক্ষ? আপনার প্রয়োজন হল কম্পিউটার, ভালো ইন্টারনেট সংযোগ, ক্লাইন্ট এর কথা বুঝতে পারা এবং বোঝতে পারার মত ইংরেজি দক্ষতা। যোগাযোগ দক্ষতা হল অন্যতম জরুরি জিনিস অনলাইন জব এর জন্য। আরেকটা প্রয়োজনীয় জিনিস হল ধৈর্য, কারণ অনেক মাসে আপনি কাজ পাবেন না, কাজ বাতিল হতে পারে, ক্লাইন্ট এর পছন্দ না হতেও পারে। এসব কারণে অনেক মানুষ অনলাইন জব করতে চাইনা, ভয় পায় কারণ তাদের ধৈর্য নেই। এগুলো কি আপনার আছে? আপনার এই গুলো না থাকলে, লেগে পড়ুন। আর থেকে থাকলে, জেনে রাখুন আপনি সফল হবেন।শুভকামনা।তাহলে, এবার জেনে আসি কিছু হাই ডিমান্ডিং জব কোন গুলো, এই বিষয়ে।

হাই ডিমান্ডিং অনলাইন জব এর তালিকা

অনলাইনে চাকরি করাকে আমরা অনলাইন জব বলি। বেশ কিছু জব যে গুলো এখন সবচেয়ে বেশি ডিম্যান্ড, চলুন সেই তালিকা দেখে আসিঃ

অনলাইন ডাটা এন্ট্রি জব

কম্পিউটার এর কোন সফটওয়্যার এর দ্বারা কোন লেখা তথ্য, ভিডিও, কোন স্প্রেডশিটে সুন্দর করে লিপিবদ্ধ করা, যাতে সহজে পরবর্তীতে ব্যাবহার করা যায়। ডাটা এন্ট্রি কয়েক ধরণের এবং খুব কম কম্পিউটার দক্ষতা থাকলেও এই অনলাইন জব করতে পারবেন। ডাটা এন্ট্রি তে অনেক ধরণের কাজের সম্পৃক্ততা আছে। অর্থাৎ ডাটা এন্ট্রি অনেক বড় একটা সেক্টর। অনলাইন জব হিসেবে এর ব্যাপক চাহিদা। সব সিজনেই এর সমান চাহিদা থাকে।

ভিডিও এডিটিং

ভিজুয়াল বা ভিডিও কনটেন্ট এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে এটা আর কারো অজানা নয়। কাওরন আমরা দেখেছি, কিভাবে নোতুন নোতুন ইউটিউবারের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিজ্ঞাপনের জন্য ভিডিওকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে, সব মিলিয়ে ভিডিও কনটেন্ট এর চাহিদা বাড়ছে। এ জন্য এখানে নোতুন  নোতুন ভিডিও এডিটর প্রয়োজন হচ্ছে, হোক সেটা লোকাল প্রতিষ্ঠান কিংবা অনলাইন জব ফ্রিলাঞ্চিং হিসেবে। সব সেক্টর এ ভিডিও এডিটর দের দারুণ চাহিদা বাড়ছে। এ জন্য আপনি প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং শিখে অনলাইন বা লোকাল জব সেক্টর এ যুক্ত হতে পারেন।

লোগো ডিজাইন

প্রত্যেক কোম্পানির কমপক্ষে একটি করে লোগো প্রয়োজন, কোম্পানির ব্র্যান্ডইং এর জন্য লোগোর বিকল্প নেই। সুতারাং, বুঝতেই পারছেন এর চাহিদা মার্কেট এ সারাজীবন থাকবে। অনলাইন জব এর জন্য মার্কেট প্লেসে কিংবা লোকাল কোন এজেন্সিতে  আপনি জব করতে পারেন ডিজাইনার হিসেবে। ফাইভার কিংবা ফ্রিলাঞ্চার এ লোগো ডিজাইন সার্ভিস দিতে পারেন। ৫ ডলার থেকে শুরু করে ৭০০ ডলার আয় করতে পারেন লোগো ডিজাইন হিসেবে।

থাম্বনেইল ডিজাইন

আমরা আগেই জেনেছি, ভিডিওর চাহিদা প্রচুর বাড়তেছে এবং ভিডিওতে থাম্বনেইল এর গুরুত্ব অপরিসীম। একটি ভালো থাম্বনেইল কোন নির্দিষ্ট ভিডিওর ভিউ কয়েকগুণ বাড়িয়ে তোলে। থাম্বনেইলকে আকর্ষণীয় করার জন্য বিভিন্ন কৌশল রপ্ত করতে পারলে আপনার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল। কোন ইউটিউবার এর জন্য কিংবা কোন প্রতিষ্ঠানে অথবা অনলাইন জব করলে, বেশ ভালো অংকের সালারি পেতে পারেন। বর্তমানেএই সেক্টর এ প্রতিযোগিতা একদম কম, সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেন।

ওয়েব ডিজাইন

ওয়েব ডিজাইনারদের কাজ হল কোন ওয়েবসাইট প্রোগ্রামিং করার আগে এর সব লেআউট এর গ্রাফিকাল ডিজাইন করা। ওয়েব ডিজাইন পেশা হিসেবে দারুণ, সেটা অনলাইন জব বলেন আর কোন আইটি কোম্পানির ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে। এটি মূলত একটি প্রাকটিকাল জব, মানে এই বিষয়ে আপনার যত প্রাকটিকাল অভিজ্ঞতা থাকবে এবং বিভিন্ন ধরণের ডিজাইন কালার সাইকোলজি বিষয়ে ধারণা রাখা জরুরি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংকে ঠিক অনলাইন জব বলা যাবে কি না, এটা নিয়ে বিতর্কের কিছু নেই। সহজে বললে এটি একটা বিজনেস। অন্য কোম্পানির যেকোনো প্রোডাক্ট অনলাইনে বিক্রি করতে পারলে, সেই কোম্পানিটি প্রোডাক্ট এর মুল দামের উপর একটা কমিশন হিসেবে বিক্রি করে দেওয়ার জন্য পারসেন্ট শেয়ার করবে। অ্যামাজন, আলিবাবা, ইবে, কমিশন জাংশন এরকম প্রচুর ওয়েবসাইট আছে যারা অনলাইনে পন্ন বিক্রির জন্য কমিশন শেয়ার করে বিক্রেতাকে। এর জন্য আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং জানা উচিত কিংবা না জানলেও আপনি কাওকে অনলাইনে হায়ার করতে পারেন। আমাদের বাংলাদেশের প্রচুর মানুষ এটাতে দারুণ সাফল্য অর্জন করতেছে।

অনলাইন টাইপিং (আর্টিকেল লিখে আয়)

আপনি কি কমবেশি লেখা লেখির অভ্যাস আছে? যদি থাকে, তাহলে আরও চর্চা করুন কারণ আর্টিকেল লিখে আপনি দারুণ ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। দারুণ সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ার অপেক্ষা করছে যদি আপনি আর্টিকেল লিখে আয় করতে চান। যারা অনলাইন জব হিসেবে নিতে চান, আপওয়ার্ক, ফ্রিলান্সার, ছাড়াও রাইটারদের জন্য আলাদা মার্কেটপ্লেস আছে। অথবা সরাসরি ক্লাইন্টদের সাথে কাজ করতে পারেন। আর্টিকেল রাইটার দের চাহিদা দিন দিন ব্যাপক হারে বাড়ছে। নিজেকে সময় দিন স্কিল বাড়ানোর জন্য।

অনলাইন শিক্ষক

কাটখট্টা লাগছে? সহজ করে বলি অনলাইন টিউটর বা অনলাইনে শেখাতে পারেন। আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয়ে নিজের অনলাইনে কোর্স চালু করতে পারেন। অনলাইনে নিজের কোর্স সেল করার জন্য বেশ দারুণ কিছু প্লাটফর্ম আছে। অথবা নিজের মার্কেটিং করে অনলাইনে কিংবা ইউটিউবে শেখাতে পারেন একই সাথে ইউটিউব থেকে আয় হবে এবং কোর্স থেকে করতে পারবেন।

ভারিচুয়াল সহকারী

ভার্চুয়াল এসিসট্যাঁন্ট বা বেক্তিগত সহকারী বেশ জনপ্রিয় এবং তুলনামূলক সহজ অনলাইন জব। আমাদের দেশে এর ব্যাপক জনপ্রিওতা আছে অনলাইনে টাকা করার জন্য। প্রায় সব মার্কেট প্লেসে এই সার্ভিস এর জন্য প্রতিনিয়ত হাজার হাজার জব পোস্ট করা হচ্ছে। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের ছোট খাট সহজ কাজ গুলো করিয়ে নেওয়ার জন্য কম মুল্লে অনলাইনে কাওকে হায়ার করে। তাদের মেইল চেক করা, সময়মত মেইল পাঠানো, শিডিউল অনুযায়ী জনান সহ অনেক ধরণের কাজ করার সুযোগ রয়েছে ভারিচুয়াল সহকারী হিসেবে। সহজে বললে কারো অফিশিয়াল কাজের সহযোগিতা করার জন্য মূলত আপনাকে হায়ার করবে। এখন আপনার কাজ হল, বিভিন্ন মার্কেট প্লেস এ গিয়ে জব রিকয়ারমেন্ট অনুযায়ী নিজের স্কিল বাড়ানোতে সময় দেন। ফলে আপনার অনলাইন জব পেতে সহজ হবে এবং শক্ত পোর্টফলিও তৈরি করতে পারবেন।

অনলাইন সার্ভে জব

অনলাইনে সার্ভে জব, আসলে নতুনদের জন্য বলা হলেও, আমি এটাকে নতুনদের জন্য বলে না। কারণ এখানে প্রচুর মানুষ ভুল প্ররোচনাই ঠকে। সোঁ ভালভাবে না জেনে কিংবা খুব ক্লিয়ার ধারণা না থাকলে এই লাইনে কারো পরামর্শে নামবেন না, খুব বিশ্বস্ত কেও না থাকলে। এই কাজটি আসলে অনেক সহজ এ জন্য আমাদের দেশে এটাকে ব্যাবহার করার জন্য কিছু অসাধু মানুষ লেগে আছে ফাঁদ পেতে। এই কাজটি হল, আপনার নিজের অপিনিওন দিলে আপনি টাকা পাবেন। কোন বিষয়ে আপনার নিজস্ব চিন্তাভাবনা শেয়ার করার মাধ্যমে এবং ভিডিও দেখে মতামত দেওয়ার মাধ্যমে।

অনুবাদক (ট্রান্সলেট জব)

আপনি যদি অনেক ভাষা জেনে থাকেন, তাহলে অনুবাদ করে অনলাইন জব করতে পারেন। প্রচুর কোম্পানির বিভিন্ন ভাষাতে অনুবাদ করতে প্রয়োজন হয়। এবং এমন বিলিঙ্গুয়াল মানুষের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে, তেমনি অনলাইন জব সাইটে প্রতিদিন হাজার হাজার জব পোস্ট হচ্ছে।

উপসংহারঃ অনলাইন জব অফার

সারা পৃথিবীতে মানুষ ক্যারিয়ার হিসেবে অনলাইন জবকে বেছে নিচ্ছে। কারণ তারা বাসায় বসে কাজ করার সুবিধা জানেন।কিন্তু যারা নোতুন আসে, তাদের একটা অংশ বিভিন্ন প্রতারকের ফাদে পা দিচ্ছেন। এ জন্য আগে টাকা আয়ের চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন এবং স্কিল বাড়ানোর দিকে সময় দিন বেশি।বিশ্বাস করুন, কোন বিষয়ে আপনি যদি আসলেই দক্ষ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার কাজের এবং টাকার অভাব হবে না। এইটা মনে রাখুন, কোন কোচিং সেন্টার এ টাকা খরচ করার আগে ইউটিউব এ খুজে দেখুন। যথেষ্ট রিসোর্স পাবেন ফ্রিতেই। অনলাইন জব নিয়ে কষ্ট করে এত কিছু লিখলাম আপনার জন্য দয়ে করে যদি শেয়ার করেন, ভালো লাগবে।চিয়ার্স!

Leave a Comment